কালো ও শক্ত কনুইকে সুন্দর করার উপায় | Kalo O Sokto Konui Ke Sundor Korar Upay

মুখের ত্বকের যত্ন নিয়ে আমরা যতটা চিন্তিত, কনুই কিন্তু ঠিক ততটাই অবহেলিত। এ দিকে শরীরের কালো ও শক্ত কনুই সব থেকে বেশি ঘষা লাগে। তাই চামড়া কালো হয়ে শক্ত হয়ে যায়। এই কনুই দেখতে ঠিক যতটা খারাপ লাগে সময়ে সময়ে ঠিক ততটাই যন্ত্রণাদায়কও হয়ে ওঠে। জেনে নিন কনুইয়ের মড়া চামড়া তোলার কিছু ঘরোয়া টোটকা।

কালো ও শক্ত কনুইকে সুন্দর করার উপায়

কালো ও শক্ত কনুইকে সুন্দর করার উপায় 

১। নারকেল তেল- কনুইয়ের কালো, মড়া চামড়া দূর করতে পারে নারকেল তেলের মধ্যে থাকা ভিটামিন ই। এক চা চামচ নারকেল তেলের সঙ্গে আধ চা চামচ লেবুর রস মিশিয়ে কনুইতে লাগান। ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর পেপার টাওয়েল দিয়ে মুছে নিন। এটা দিনে এক বার করে করলে উপকার পাবেন। অথবা এক টেবিল চামচ ওয়ালনাট গুঁড়োর সঙ্গে নারকেল তেল মিশিয়ে কনুই স্ক্রাব করুন। সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিন করলে ভাল ফল পাবেন।

২। লেবু- কালো শক্ত হয়ে আসা কনুইয়ের যত্নে সবচেয়ে ভাল লেবু। ভিটামিন সি মড়া চামড়া দূর করে ত্বকের রঙ ফিরিয়ে আনে। অর্ধেক লেবুর টুকরোর উপর এক চামচ চিনি রেখে কনুইতে ঘষতে থাকুন। ২০ মিনিট পর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। অথবা একটা লেবুর রসের সঙ্গে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে কনুইতে লাগিয়ে রাখুন। ২০ মিনিট পর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

৩। দই- ল্যাকটিক অ্যাসিড মড়া চাম়়ড়া দূর করতে দারুণ কাজ করে। এক টেবিল চামচ দই, দুই টেবিল চামচ ময়দা মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করে কনুইতে লাগিয়ে রাখুন ২০ মিনিট। শুকিয়ে গেলে ঘষে ঘষে তুলে ফেলুন। এটা সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিন করুন।

৪। চিনি- সম পরিমাণ চিনি ও অলিভ অয়েল এক সঙ্গে মিশিয়ে পাঁচ মিনিট মাসাজ করতে থাকুন। জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। মড়া চাম়ড়া উঠে কনুইয়ের ত্বক নরম হবে।

৫। বেকিং সোডা- ক্লিনজার হিসেবে খুব ভাল কাজ করে বেকিং সোডা। এক টেবিল চামচ বেকিং সোডা, এক টেবিল চামচ দুধে মিশিয়ে দুই থেকে তিন মিনিট মাসাজ করুন। হালকা গরম জলে ধুয়ে নিন। যত দিন না ত্বক পুরোপুরি পরিষ্কার হচ্ছে এক দিন অন্তর এক দিন এটা করতে থাকুন।

৬। অ্যালয় ভেরা- ত্বক হাইড্রেটেড ও ময়শ্চারাইজ় রাখতে অ্যালয় ভেরা খুব ভাল কাজ করে। তাজা অ্যালয় ভেরার পাতা বেটে বা বাজার থেকে অ্যালয় ভেরা জেল কিনে কনুইতে লাগান। ২০ মিনিট রেখে জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে এক থেকে দুই দিন এটা করা উচিত্।

৭। আমন্ড- ত্বকের জন্য আমন্ড তেল খুব ভাল। একটু গরম করে নিয়ে আমন্ড তেল পাঁচ মিনিট কনুইতে মাসাজ করুন। অথবা এক-দুই টেবিল চামচ আমন্ড গুঁড়ো অল্প দইয়ের সঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে শক্ত হয়ে আসা কনুইতে লাগান। শুকিয়ে গেলে অল্প জল দিয়ে মাসাজ করুন। ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দু’দিন এটা করলে কয়েক দিন পরই তফাত্ বুঝতে পারবেন।

৮। পুদিনা পাতা- আধ কাপ জলের মধ্যে এক মুঠো পুদিনা পাতা দুই থেকে তিন মিনিট ফুটিয়ে নিন। এর মধ্যে অর্ধেক লেবুর রস মিশিয়ে ছেঁকে নিয়ে ঠান্ডা হতে দিন। এই মিশ্রণে তুলো ভিজিয়ে কনুইতে লাগান। ১৫ থেকে ২০ মিনিট রেখে জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

৯। হলুদ- ব্যাকটেরিয়া জমাট বাঁধা শক্ত কনুইয়ের জন্য দারুণ উপকারী হলুদ। এক চা চামচ মিল্ক ক্রিমের সঙ্গে অল্প গুঁড়ো হলুদ মিশিয়ে কনুইতে লাগান। কিছুক্ষণ রেখে হালকা গরম জলে ধুয়ে ফেলুন। অথবা সম পরিমাণ হলুদ গুঁড়ো ও ময়দা এক সঙ্গে মিশিয়ে রোজ ওয়াটার দিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন। কনুইতে লাগান। কিছুক্ষণ রেখে শুকিয়ে গেলে হালকা গরম জলে ধুয়ে নিন।

১০। শশা- শশা মোটা করে স্লাইস করে নিয়ে কনুইতে ১০ মিনিট ধরে ঘষতে থাকুন। পাঁচ মিনিট রেখে ঠান্ডা জলে ধুয়ে ফেলুন। ভাল ফল পেতে প্রতি দিন এটা করুন। অথবা সম পরিমাণ শশার রস ও লেবুর রস মিশিয়ে নিন। কনুইতে লাগিয়ে ২০ থেকে ৩০ মিনিট রেখে জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।